শুক্রবার, ১৬ এপ্রিল ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ৩ বৈশাখ ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

সিলেটে পুলিশি নির্যাতনে রায়হান হত্যা মামলার অভিযোগপত্র প্রস্তুত করেছে পিবিআই



সিলেটের বন্দরবাজার ফাঁড়িতে পুলিশি নির্যাতনে রায়হান আহমদ হত্যা মামলার অভিযোগপত্র (চার্জশিট) প্রস্তুত করেছে পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই)।

পিবিআই সিলেটের পু’লিশ সুপার মুহাম্ম’দ খালেদ উজ জামান এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। তিনি বলেন-আগামী বুধবারের (৩১ মা’র্চ) মধ্যে যেকোনো দিন অ’ভিযোগপত্রটি সংশ্লিষ্ট আদালতে জমা দেয়া হবে।

চার্জশিট দাখিলের আগে সংবাদ সম্মেলন করে পুরো ত’দন্ত কার্যক্রম ও আ’সামিদের ব্যাপারে অবগত করা হবে বলেও জানান তিনি।

অভিযোগপত্রে কাদেরকে বা কতজনকে আসামি করা হচ্ছে এব্যাপারে মুহাম্ম’দ খালেদ উজ জামান কিছু জানাতে চাননি। তবে একটি সূত্র জানিয়েছে- বন্দরবাজার ফাঁড়ির ইনচার্জ (বরখাস্ত) উপ-পরিদর্শক (এসআই) আকবর হোসেন ভূইয়া, বরখাস্ত হওয়া টুআইসি উপ-পরিদর্শক (এসআই) হাসান আলীসহ পাঁচ পু’লিশ সদস্য ও একজন গণমাধ্যমকর্মীকে অ’ভিযু’ক্ত করে চার্জশিট প্রস্তুত করা হয়েছে।

সূত্র জানায়- রায়হান আহমদ হ’ত্যা মামলার তদন্তের সময় বর্ধিত করার জন্য গত ১০ ফেব্রুয়ারি সিলেটের অতিরিক্ত মুখ্য মহানগর বিচারিক হাকিম মো. আব্দুল মুমিনের আদালতে আবেদন করে পিবিআই। ১৪ ফেব্রুয়ারি আবেদনের শুনানির পর আদালত ৩০ কার্যদিবস সময় বৃদ্ধি করেন। এরপর ত’দন্তকারী কর্তৃপক্ষ পিবিআই কর্মকর্তারা রায়হান হ’ত্যা মামলার সব তথ্য-প্রমাণ পর্যালোচনা করে অ’ভিযোগপত্র চূড়ান্ত করার কাজ শুরু করেন।

ওই সূত্র আরও জানায়- ইতোমধ্যে অভিযোগপত্রটি চূড়ান্ত করা হয়ে গেছে। এখন আইনি কোনো ফাঁকফোকড় রয়ে গেছে কি-না তা খতিয়ে দেখছেন তারা। আগামী বুধবারের মধ্যে যেকোনো দিন আদালতে এই অভিযোগপত্র জমা দেয়া হবে।

সূত্র জানায়- রায়হান হত্যাকাণ্ডের ঘটনার পর বন্দরবাজার ফাঁড়ির ছয় পু’লিশ সদস্যকে সাময়িক বরখাস্ত করে ওই মামলায় গ্রে’প্তার দেখানো হয়। অভিযু’ক্ত ছয়জন এখন কারাগারে রয়েছেন। তারা হলেন- বন্দরবাজার পু’লিশ ফাঁড়ির তৎকালীন ইনচার্জ উপ-পরিদর্শক (এসআই) আকবর হোসেন ভূইয়া, টুআইসি উপ-পরিদর্শক (এসআই) হাসান আলী, এএসআই আশেকে এলাহী, কনস্টেবল হারুনুর রশিদ, কনস্টেবল তৌহিদ মিয়া ও কনস্টেবল টিটু চন্দ্র দাস।

প্রসঙ্গত, নগরীর আখালিয়ার নেহারীপাড়া এলাকার বাসিন্দা রায়হান আহমদকে গত বছরের ১১ অক্টোবর দিবাগত মধ্যরাতে বন্দরবাজার ফাঁড়িতে ধরে নিয়ে যায় পুলিশের একটি দল। এরপর টাকার দাবিতে তাকে রাতভর ফাঁড়িতে আটকে রেখে নির্যা’তন করা হয়।

সকাল ৬টা ৪০ মিনিটে দিকে তাকে এমএজি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে ভর্তি করা হয়। সকাল ৭টা ৫০ মিনিটে রায়হান হাসপাতালে মারা যান। এ ঘটনায় রায়হানের স্ত্রী তাহমিনা আক্তার তান্নি বাদী হয়ে সিলেট কোতোয়ালি মডেল থানায় হেফাজতে মৃত্যু নিবারণ আইনে অজ্ঞাত পুলিশ সদস্যদের আসামি করে মামলা দায়ের করেন।

মামলার এজাহারে তান্নি উল্লেখ করেন- ১০ অক্টোবর শনিবার বিকেল ৩টার দিকে তার স্বামী রায়হান আহমদ কর্মস্থল নগরের স্টেডিয়াম মার্কেটস্থ ডা. গো’লাম কিবরিয়া ও ডা. শান্তা রাণীর চেম্বারে যান। পরদিন ১১ অক্টোবর ভোর ৪টা ৩৩ মিনিটে তার শাশুড়ির (রায়হানের মা সালমা বেগম) মোবাইল ফোনে একটি নম্বর থেকে কল দেয়া হয়। ফোন রিসিভ করেন রায়হানের চাচা (সৎ বাবা) হাবিবুল্লাহ।

ফোনে রায়হান আর্তনাদ করে রায়হান জানান- তিনি বন্দরবাজার পুলিশ ফাঁড়িতে আছেন এবং তাকে বাঁচাতে ১০ হাজার টাকা নিয়ে ফাঁড়িতে যেতে বলেন। এরপর হাবিবুল্লাহ ভোর সাড়ে ৫টার দিকে বন্দরবাজার পু’লিশ ফাঁড়িতে গিয়ে রায়হান কোথায় জানতে চাইলে দায়িত্বরত এক পু’লিশ সদস্য বলেন- সে ঘুমিয়ে গেছে। আর যে পুলিশ রায়হানকে ধরেছে, তিনিও চলে গেছেন। এরপর তাকে ১০ হাজার টাকা নিয়ে সকাল সাড়ে ৯টার দিকে ফাঁড়িতে আসতে বলেন ওই পু’লিশ সদস্য।

হাবিুল্লাহ সকাল পৌনে ১০টার দিকে আবার ফাঁড়িতে গেলে দায়িত্বরত পু’লিশ সদস্য জানান রায়হান অসুস্থ হয়ে পড়ায় তাকে ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতা’লে ভর্তি করা হয়েছে। সঙ্গে সঙ্গে রায়হানের চাচা ওসমানী হাসপাতালে গিয়ে জানতে পারেন- রায়হানকে সকাল ৬ টা ৪০ মিনিটে হাসপাতা’লে ভর্তি করা হয় এবং সকাল ৭টা ৫০ মিনিটে তিনি মারা যান। মর্গে হাবিবুল্লাহসহ পরিবারের অন্যান্য সদস্য ও আত্মীয়-স্বজনরা গিয়ে রায়হানের লা’শ দেখতে পান।

এজাহারে তান্নি বলেন- আমার স্বামীকে বন্দরবাজার ফাঁড়িতে নিয়ে গিয়ে পুলিশি হেফাজতে রেখে হাতে-পায়ে উপর্যুপরি আঘাত করা এবং হাতের নখ উপড়ে ফেলা হয়েছে। পুলিশ ফাঁড়িতে রাতভর নির্যাতনের ফলে আমার স্বামী মারা গেছে।

সূত্রঃ ডেইলি সিলেট

শেয়ার করুন:

প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

error: Content is protected !!