শুক্রবার, ১৬ এপ্রিল ২০২১ খ্রিস্টাব্দ | ৩ বৈশাখ ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

ইসলামী ইতিহাস ও ঐতিহ্য

বিশ্বের উল্লেখযোগ্য কয়েকটি ইসলামী শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান



বিশ্বব্যাপী ইসলাম প্রসারের পাশাপাশি ইসলামী শিক্ষা এবং সংস্কৃতির প্রসারে ইসলামী শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান সমূহের অবদান অনন্য। বিশ্বসভ্যতা এবং ইসলামী জ্ঞান বিকাশে বিশ্বব্যাপী অবদান রাখা উল্লেখযোগ্য কয়েকটি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানসমূহ-

আল-আজহার বিশ্ববিদ্যালয়।

১.আল-আজহার বিশ্ববিদ্যালয় (মিসর): মিসরের রাজধানী কায়রোতে অবস্থিত এই বিশ্ববিদ্যালয় বিশ্বের দ্বিতীয় সর্বপ্রাচীন বিশ্ববিদ্যালয়। এটি ৯৭২ সালে প্রতিষ্টিত হয়। কুরআন-হাদিসের পাশাপাশি এখানে ব্যাকরণ, চান্দ্রকলা, যুক্তিবিদ্যা, চিকিৎসা বিজ্ঞান, প্রকৌশল শাস্ত্র ইত্যাদি বিষয়ে পাঠদান করা হয়। ১০০৫ সালে এ বিশ্ববিদ্যালয়ে একটি সমৃদ্ধ গ্রন্থাগারও প্রতিষ্টিত হয়। বর্তমানে এই বিশ্ববিদ্যালয়ে ৯টি ইন্সটিটিউট ও ৩৫৯টি একাডেমিক বিভাগ চালু রয়েছে। ফাতেমীয় খলিফা আল মুইজ এই বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রতিষ্টাতা।

উম আল-কুরা বিশ্ববিদ্যালয়।

২. উম আল-কুরা বিশ্ববিদ্যালয় (সৌদি আরব): মক্কায় অবস্থিত এই বিশ্ববিদ্যালয় আরব বিশ্বের শীর্ষস্থানীয় একটি বিশ্ববিদ্যালয়। ১৯৪৯ সালে ইসলামি শরিয়াহ কলেজ হিসেবে এর যাত্রা শুরু হয়। ১৯৮১ সালে এটি পূর্ণাঙ্গ বিশ্ববিদ্যালয় হিসেবে রুপ লাভ করে। বর্তমানে এই বিশ্ববিদ্যালয়ে ইসলামি শিক্ষার পাশাপাশি চিকিৎসা, প্রকৌশল, ব্যবসায় শিক্ষাসহ সময় উপযোগী বিভিন্ন বিষয়ে ডিগ্রি প্রদান করা হয়। বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্যাম্পাস ও অন্যান্য স্থাপনা দৃষ্টিনন্দন অত্যাধুনিক স্থাপত্যে নকশায় পবিত্র মক্কা নগরীর ইতিহাস ও ঐতিহ্য ধারণ করে
আছে।

আল-মুস্তানসিরিয়া বিশ্ববিদ্যালয়।

৩.আল-মুস্তানসিরিয়া বিশ্ববিদ্যালয় (ইরাক): ইরাকের প্রাচীন শহর ও রাজধানী বাগদাদে অবস্থিত এই বিশ্ববিদ্যালয় আব্বাসীয় খলিফা মুস্তানসির ১২২৭ সালে প্রথম মাদ্রাসা হিসেবে প্রতিষ্টা করেন। ১৯৬৩ সালে এটি পূর্ণাঙ্গ বিশ্ববিদ্যালয়ের রুপ ধারণ করে। ১২৪২ সালে এখানে স্থাপন করা হয় একটি সমৃদ্ধ গ্রন্থাগার। যে গ্রন্থাগারে গণিত ও চিকিৎসা বিজ্ঞানসহ বিচিত্র বিষয়ে বহুমূল্যবান গ্রন্থাদি রয়েছে। আল-মুস্তানসিরিয়া বিশ্ববিদ্যালয় অষ্টম শতাব্দির সমৃদ্ধ ইতিহাস ও প্রাচীন স্থাপত্যের এক অনন্য নিদর্শন।

কাতার ফ্যাকাল্টি অব ইসলামিক স্টাডিজ।

৪.কাতার ফ্যাকাল্টি অব ইসলামিক স্টাডিজ (কাতার): রাজধানী দোহায় এডুকেশন সিটির অংশ হিসেবে এটি ২০০৮-১৫ সময়কালে নির্মিত হয়। ইসলামের সামগ্রিক জ্ঞান ধারনা প্রতিষ্টার লক্ষ্যে এই প্রকল্পটি বাস্তবায়িত হয়। এই প্রকল্পের প্রধান পৃষ্টপোষক কাতার ফাউন্ডেশন। এখানে বিস্তৃত আবাসিক ও চিত্ত বিনোদনের সুবিধা রয়েছে। এ প্রতিষ্টানে প্রাথমিক থেকে স্নাতকোত্তর পর্যন্ত পড়ালেখার পর্যাপ্ত সুযোগ রয়েছে।

দারুল উলুম দেওবন্দ।

৫.দারুল উলুম দেওবন্দ (ভারত): উত্তর প্রদেশের দেওবন্দ শহরে ১৮৬৬ সালে প্রতিষ্টিত দারুল উলুম দেওবন্দ ভারত উপমহাদেশের ইসলামি শিক্ষার প্রাচীন বিদ্যাপিঠ। মাওলানা কাসিম নানোতাবির নেতৃত্বে বৃটিশ শাসন আমলে এই বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠিত হয়। বৃটিশবিরোধী আন্দোলনে এই ইসলামি বিশ্ববিদ্যালয়ের গুরুত্বপূর্ণ অবদান রয়েছে। ভারতীয় মুসলিম ‘ল-বোর্ড’ সহ বহু সামজিক সংস্থা এই বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীনে পরিচালিত হয়। এটি বিশ্বব্যাপি মৌলিক ইসলামি বিষয়সমূহে উচ্চতর শিক্ষা প্রদানের ক্ষেত্রে মর্যাদাশীল প্রতিষ্টান হিসেবে খুবই সমাদৃত।

ইউনিভার্সিটি অফ সারায়েবো, বসনিয়া।

৬.ইউনিভার্সিটি অব সারায়েভো (বসনিয়া): বসনিয়া-হার্জেগোভিনার রাজধানীতে অবস্থিত ইউনিভার্সিটি অব সারায়েভো গোটা যুগোস্লাভিয়া অঞ্চলের প্রাচীনতম ইসলামিক বিশ্ববিদ্যালয়। অস্ট্রো-হাঙ্গেরীয় আমলে একে সর্বজনীন প্রতিষ্ঠানে পরিণত করা হয়। ১৫৩৭ সালে প্রতাপশালী অটোমান শাসক গাজী হুসরেভ বেগ নিজ নামে এই মাদ্রাসা প্রতিষ্ঠা করেন যা পরে ১৯৪৯ সালে আধুনিক বিশ^বিদ্যালয় হিসেবে যাত্রা শুরু করে। এই বিশ্ববিদ্যালয় বলকান অঞ্চলের বৃহত্তম ও অন্যতম মর্যাদাশীল বিশ্ববিদ্যালয়। ২০টি অনুষদ ও ৩টি ধর্মতাত্ত্বিক প্রতিষ্টানের মাধ্যমে এখানে উচ্চতর ডিগ্রি প্রদান করা হয়।

ইন্টারন্যাশনাল ইসলামিক ইউনিভার্সিটি, মালয়েশিয়া।

৭.ইন্টারন্যাশনাল ইসলামিক ইউনিভার্সিটি (মালয়েশিয়া): এই বিশ্ববিদ্যালয় ইসলামি গবেষণার ক্ষেত্রে বিশ্বের শীর্ষ পাচঁটি বিশ্ববিদ্যালয়ের একটি। জ্ঞানের ইসলামীকরণ ও আধুনিকায়নের লক্ষ্য ধারণ করে এই বিশ্ববিদ্যালয় আন্তর্জাতিক অঙ্গনে শ্রেষ্টত্বের পানে এগিয়ে চলেছে। দেশব্যাপি ছয়টি স্থায়ী ক্যাম্পাসের মাধ্যমে ইসলামিক সায়েন্স, চিকিৎসা বিজ্ঞান, যন্ত্র- প্রকৌশলসহ ১৪টি অনুষদে এর শিক্ষাকার্যক্রম পরিচালিত হয়ে আসছে। ১৯৮২ সালে মালয়েশিয়ার তৎকালিন প্রধানমন্ত্রী মাহাথির মোহাম্মদ ইসলামি শিক্ষার একটি আন্তর্জাতিক প্রতিষ্ঠানের ধারণা উপস্থাপন করলে এর পরিপ্রেক্ষিতে ১৯৮৩ সালে মালয়েশিয়ার সেলেংগরে বিশ্ববিদ্যালয়টি প্রতিষ্ঠিত হয়। ওআইসি এবং আটটি দেশের সরকার বিশ্ববিদ্যালয়টির পৃষ্টপোষক।

শেয়ার করুন:

প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

error: Content is protected !!