মঙ্গলবার, ২৩ জুলাই ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ | ৮ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
Sex Cams

মো. জিল্লুর রহমান জিলু

পাপ, বাপকেও ছাড়ে না….



ফেসবুকে ভাইরাল ওই পাশাপাশি দু’টি ছবির কত ফারাক। প্রথম ছবিতে একজন প্রতাপশালী পেশাজীবী। আর অপর ছবিতে সাধারণ মানুষের কাছে করজোড়ে নত একজন অপরাধীর আকুল মিনতি।

অথচ, দু’টি ছবিতে ব্যক্তি একজনই। আকবর হোসেন ভূঁইয়া। যেমন তার নাম, তেমন তার পদ-পদবীও একদিন ছিল বটে। সিলেটের বন্দরবাজার পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ পদে থেকে সে অপরাধ এবং অপরাধীদের বিরুদ্ধে লড়াই করে দেশজুড়ে সুনাম অজর্ন করতে পারতো। কিন্তু, ভালো কাজ না করে, ভালোকে মন্দ বানিয়ে সে বহুল আলোচিত রায়হান আহমদ হত্যা মামলার প্রধান অভিযুক্ত।

পুলিশের পবিত্র পোষাকে তাকে অনেক স্মার্ট দেখা যাচ্ছে। বাস্তবে তার পেশা এবং পদবী একজন দায়িত্বশীল মানুষের প্রতিবিম্ব। অথচ, দেশ ও জাতির সেবক হবার শপথ নিয়ে পুলিশের পবিত্র পোষক গায়ে দিয়ে সে জঘন্য অপরাধে লিপ্ত হয়েছে। আজ সে অনেক নিন্দিত, ‘কুখ্যাত’ এসআই আকবর! তার পরিণতি সে ভোগ করতেই হবে। কারণ, পাপ, বাপকেও ছাড়ে না।
সাধারণ জনতার হাতে বন্দীদশায় থাকাকালে ধারণকৃত ভিডিও (ভাইরাল) পর্যবেক্ষণ করলে দেখা যায়, কত অসহায় সে। মারধর না করা এবং প্রাণে রক্ষা পাবার জন্য তার আকুল আকুতি। অথচ, মাত্র একমাস আগেও বন্দরবাজার পুলিশ ফাঁড়িতে সে ক্ষমতার কত জঘন্য অপব্যবহার করেছে। গোটা দেশবাসী মর্মাহত হয়েছেন তার কৃত অপরাধের বিবরণ জেনে। আজ তার দুরবস্থার জন্য কারো কোনো দরদ নেই, তার প্রতি শুধুই ঘৃণা আর ধিক্কার। গত সোমবার (০৯ নভেম্বর) পুলিশের হাতে গ্রেফতারের পর রাতেই তাকে তদন্তকারী সংস্থা পিবিই’র কাছে হস্তান্তর করা হয়। গত মঙ্গলবার (১০ নভেম্বর) আদালতে হাজির করা হয় এবং তাকে জিঞ্জাসাবাদের জন্য আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে তার ৭দিনের রিমা- হয়েছে। দেশবাসী অপরাধী আকবর এবং তার দোসরদের উপযুক্ত শাস্তি চান।

এসআই (বরখাস্ত) আকবরের কৃতকর্মের প্রতিফল থেকে আমাদের শিক্ষা নিতে হবে। এইদিন দিন নয়, আরও দিন আছে। পেশাদারী ও দায়িত্ব পালনের ক্ষেত্রে ইচ্ছাকৃত ত্রুটি-বিচ্যুতি অনেক বড় অপরাধ। আর অপরাধের শাস্তি পেতেই হয়। আমার এ লেখা শুধুমাত্র একজন পুলিশ সদস্য বা পুলিশ বাহিনীর উদ্দেশ্যে বা বিরুদ্ধে নয়। এটি সামগ্রিক একজন ব্যক্তি অপরাধীকে নিয়ে পর্যবেক্ষণ। আমার লেখা পেশাদার বাহিনী, সরকারি, বে-সরকারি কর্মকর্তা, শিক্ষক, চিকিৎসক, সাংবাদিক, ব্যবসায়ী, ঠিকাদারসহ বিভিন্ন শ্রেণি-পেশায় যারা অনিয়ম, দুর্নীতির সাথে জড়িত তাদের বিরুদ্ধে বা উদ্দেশ্যে। এমনকি, আমার নিজের প্রতি নিজের স্বগতোক্তিও বটে। কারণ, পাপ বাপকেও ছাড়ে না, এটাই অমোঘ সত্য।

লেখক: সাংবাদিক, সাধারণ সম্পাদক – বালাগঞ্জ উপজেলা প্রেসক্লাব।

শেয়ার করুন:

প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

error: Content is protected !!