মঙ্গলবার, ৬ ডিসেম্বর ২০২২ খ্রিস্টাব্দ | ২২ অগ্রহায়ণ ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

বিশ্বের জনসংখ্যা ৮০০ কোটি ছাড়িয়েছে



ছবি: সংগৃহীত

জাতিসংঘের মহাসচিব আন্তোনিও গুতেরেস এক বিবৃতিতে জানিয়েছেন, আজ কোথাও জন্ম নেওয়া একটি শিশু হবে বিশ্বের আট’শ কোটিতম ব্যক্তি। এই গৃহের মানবতার দায়িত্বশীলতা ভাগ করে নেয়ায় বিবেচনার মধ্য দিয়ে এই মাইলফলকটির বৈচিত্র্য এবং অগ্রগতি উদযাপন করতে হবে।

এএফপির এক প্রতিবেদনে বলা হয়, মঙ্গলবার (১৫ নভেম্বর) জন্মহারের প্রবণতার ওপর ভিত্তি করে জাতিসংঘের একটি অনুমিত হিসাবে এ কথা বলা হয়। বিশ্বের বর্তমান জনসংখ্যা ১৯৫০ সালের ২.৫ বিলিয়ন (আড়াই’শ কোটি) থেকে তিনগুণের চেয়ে বেশী বৃদ্ধি পেয়েছে। ১৮০০ সাল থেকে বিশ্বের জনসংখ্যা আট গুণ বেড়েছে, আনুমানিক এক বিলিয়ন থেকে আট বিলিয়ন হয়েছে।

জাতিসংঘ মনে করে জনস্বাস্থ্য, পুষ্টি, ব্যক্তিগত পরিচ্ছন্নতা এবং ওষুধের উন্নতির সুবাদে মানব উন্নয়নের পাশাপাশি মানুষের আয়ু বৃদ্ধি পেয়েছে। এটি উচ্চ প্রজনন হারের ফলাফল, বিশেষ করে বিশ্বের দরিদ্রতম দেশগুলিতে, যার বেশিরভাগই সাব-সাহারান আফ্রিকায়, যা তাদের উন্নয়ন লক্ষ্যগুলিকে ঝুঁকির মধ্যে ফেলেছে। জনসংখ্যা বৃদ্ধি অর্থনৈতিক উন্নয়নের পরিবেশগত প্রভাবকেও বাড়িয়ে দিয়েছে।

প্রতিবেদনে আরও বলা হয়, যখন কেউ কেউ উদ্বিগ্ন যে আট বিলিয়ন মানুষ পৃথিবীর জন্য অনেক বেশি, বেশিরভাগ বিশেষজ্ঞরা বলছেন যে সবচেয়ে বড় সমস্যা হল ধনী ব্যক্তিদের দ্বারা সম্পদের অতিরিক্ত ব্যবহার।

জাতিসংঘের জনসংখ্যা তহবিলের প্রধান নাতালিয়া কানেম বলেছেন, ‘কেউ কেউ উদ্বেগ প্রকাশ করেন যে আমাদের পৃথিবী অতিরিক্ত জনসংখ্যার বোঝায় পরিণত হয়েছে।’ ‘আমি এখানে স্পষ্টভাবে বলতে চাই যে নিছক মানুষের সংখ্যা ভয়ের কারণ নয়।’

এদিকে, রকফেলার ইউনিভার্সিটির ল্যাবরেটরি অফ পপুলেশনের জোয়েল কোহেন বলেন, পৃথিবী কত লোককে সমর্থন করতে পারে তার দুটি দিক রয়েছে: প্রাকৃতিক সীমা এবং মানুষের পছন্দ। আমাদের পছন্দের ফলে মানুষ প্রতি বছর গ্রহটির আরো জৈব সম্পদ আহরণ ও ভোগ করতে পারে, এতে অনেক বেশি জৈব সম্পদ যেমন বন এবং জমি গ্রাস করা হবে। জীবাশ্ম জ্বালানির অত্যধিক ব্যবহার, উদাহরণস্বরূপ- আরও কার্বন ডাই অক্সাইড নির্গমনের দিকে পরিচালিত করে, যা বিশ্ব উষ্ণায়নের জন্য দায়ী।

জাতিসংঘের জনসংখ্যা তহবিলের রাচেল স্নো বলেছেন, ১৯৬০ এর দশকের গোড়ার দিকে বিশ্বের জনসংখ্যা বৃদ্ধির হার নাটকীয়ভাবে হ্রাস পেয়েছে। বার্ষিক প্রবৃদ্ধি ১৯৬২ থেকে ১৯৬৫ সালের মধ্যে সর্বোচ্চ ২.১ শতাংশ থেকে ২০২০ সালে ১ শতাংশের নিচে নেমে এসেছে। জাতিসংঘের প্রদর্শিত হিসাবে জন্মহার ক্রমাগত হ্রাসের কারণে ২০৫০ সাল নাগাদ এটি ০.৫ শতাংশের কাছাকাছি হতে পারে।

জাতিসংঘের অনুমিত হিসাবে বলা হয়, ২০৩০ সালে জনসংখ্যা প্রায় ৮.৫ বিলিয়ন, ২০৫০ সালে ৯.৭ বিলিয়ন এবং ২০৮০-এর দশকে প্রায় ১০.৪ বিলিয়নে বৃদ্ধি পাবে। অন্য দলগুলো অবশ্য ভিন্ন পরিসংখ্যান করেছে।

ইউএস-ভিত্তিক ইনস্টিটিউট ফর হেলথ মেট্রিক্স অ্যান্ড ইভালুয়েশন (আইএইচএমই) ২০২০ সালের একটি গবেষণায় অনুমান করেছে যে বিশ্বব্যাপী জনসংখ্যা ২০৬৪ সালের মধ্যে সর্বাধিক বৃদ্ধি পাবে, কখনও ১০ বিলিয়নে পৌঁছাবে না এবং ২১০০ সালের মধ্যে ৮.৮ বিলিয়নে নেমে আসবে।

ফরাসি ইনস্টিটিউট ফর ডেমোগ্রাফিক স্টাডিজ অনুসারে, ১০,০০০ খ্রিস্টপূর্বাব্দে প্রায় ৬ মিলিয়ন থেকে বিশ্ব জনসংখ্যা ২,০০০ খ্রিস্টপূর্বাব্দে ১০০ মিলিয়নে এবং তারপর খ্রিস্টপূর্ব প্রথম শতাব্দীতে ২৫০ মিলিয়নে উন্নীত হয়। ব্লাক ডেথের ফলে ১৩০০ থেকে ১৪০০ সালের মধ্যে মানুষের জনসংখ্যা ৪২৯ থেকে ৩৭৪ মিলিয়নে নেমে আসে।

অন্যান্য ঘটনা, যেমন প্লেগ অফ জাস্টিনিয়ান, যা ৫৪১ থেকে ৭৬৭ সালে দুই শতাব্দী ধরে ভূমধ্যসাগরে আঘাত হানে এবং পশ্চিম ইউরোপে মধ্যযুগের প্রথম দিকের যুদ্ধগুলিও পৃথিবীতে মানুষের সংখ্যায় সাময়িক হ্রাস ঘটায়। ১৯ শতক থেকে জনসংখ্যা বিস্ফোরণ হতে শুরু করে, মূলত আধুনিক ওষুধের বিকাশ এবং কৃষির শিল্পায়নের কারণে, যা বিশ্বব্যাপী খাদ্য সরবরাহকে বাড়িয়ে তোলে।

শেয়ার করুন:

প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

error: Content is protected !!