শুক্রবার, ২৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ | ১১ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

কমলগঞ্জে একই পরিবারে দুই বিরল রোগী : অসহায় পরিবারের পাশে বিত্তবানদের এগিয়ে আসার আহ্বান



মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জ উপজেলার ৫নং সদর ইউনিয়নের প্রত্যন্ত অঞ্চল উত্তর তিলকপুর গ্রাম। গ্রামের দরিদ্র কৃষক পরিবারের সন্তান মাওলানা ফখরুল ইসলাম আফরোজ। আফরোজের ৪ সন্তানের মধ্যে দ্বিতীয় ও তৃতীয় সিরাজুস সালেকিন (১৯) এবং মেয়ে আবেদা আক্তার রিমা (১৪) জন্মের তিন বছর পর থেকেই অজানা এক বিরল রোগে আক্রান্ত হয়। প্রথমে শরীরে ছোট ছোট কালো দাগ দিয়ে শুরু হয় এই রোগের। প্রথমে গ্রাম্য কবিরাজ এবং পরে ঢাকা শহরের মেডিসিন বিভাগের বিভিন্ন ডাক্তারদেরকে দেখানোর পরে সিলেট প্লাস্টিক সার্জারী বিভাগের ডাক্তার মো. হাসিব রহমান এবং এই রোগ নির্ণয়কারী একই বিভাগের বেশ কয়েকজন ডাক্তারকে দেখিয়েছেন বাবা ফখরুল ইসলাম (আফরোজ)। তবে তাদের দেয়া ঔষধ ও পরামর্শ মতে চললেও রোগ কমেনি বরং বেড়ে এখন ছেলে সিরাজুস সালেকিনের মুখের বেশ অংশজুড়ে পচন শুরু হয়েছে।

মা শিরি বেগম বলেন- রোগাক্রান্ত সিরাজুস সালেকিন এখন নরম জাতীয় খাবার ছাড়া অন্য কোন ধরনের খাবার গ্রহণ করতে পারছে না। প্রায় ঘরে বন্দি অবস্থায় এই দুই বিরল রোগী ভাই বোন অসহ্য যন্ত্রণা পোহাতে হচ্ছে দিনের পর দিন। দিনের বেলায় ঘরের বাহিরে না যেতে ডাক্তারি পরামর্শ তাকায় ঘরের বাইরেও যেতে পারছে না এরা দুই ভাই বোন। তার পরেও রিমার রোগটি ক্রমাগত বেড়েই চলেছে দিনের পর দিন।

পরিবারের একমাত্র উপার্জনক্ষম ব্যক্তি বাবা ফখরুল ইসলাম আফরোজের নুন আনতে পান্তা ফুরায়। পাশা পাশি পরিবারের অন্য সদস্যদের লেখাপড়ার খরচসহ পরিবারের ভরণপোষণ করতেই হিমশিম খাচ্ছেন।

প্রতি সপ্তাহে ছেলে ও মেয়ের কত টাকার ঔষধ লাগে এমন প্রশ্নের জবাবে রোগীগনের বাবা ফখরুল ইসলাম (আফরোজ) কান্না জড়িত কন্ঠে বলেন- এই দুইজনের ডাক্তারি ফি ছাড়াও শুধু ঔষদের জন্য প্রতি সপ্তাহে তিন হাজার টাকার প্রয়োজন হয়।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে মুঠোফোনে সিলেট প্লাস্টিক সার্জারি বিভাগের ডাক্তার হাসিব রহমান বলেন- এই ধরনের রোগীদের চিকিৎসা হয়তো ইউরোপ আমেরিকার মতো দেশে থাকতে পারে তবে বর্তমানে ব্যাথা নাশক ঔষধ এবং পরামর্শ দিয়েছি।

স্থানীয় ইউপি সদস্য রুপেন সিংহ বলেন- তাদেরকে মানবিক সাহায্যের আবেদনের জন্য পরামর্শ দেয়া হয়েছে। তাদের পাশে সমাজের বিত্তবানদের এগিয়ে আসার আহ্বান জানাচ্ছি।

বাবা ফখরুল ইসলাম আফরোজ ছেলের ও মেয়ের সুস্থতার জন্য দেশবাসীর কাছে দোয়া ও আর্থিক সহযোগিতা চেয়েছেন। বাবা ফখরুল ইসলাম আফরোজ আরো বলেন- ইতোমধ্যে সরকারের কাছে সাহায্য চেয়ে কমলগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার বরাবরে আবেদন করা হয়েছে। অসহায় পরিবারের সাথে যোগাযোগের জন্য মোবাইল নং ০১৭৩১৩৮১৩৬৫।

 

শেয়ার করুন:

প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

error: Content is protected !!