বুধবার, ২৪ জুলাই ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ | ৯ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

ফেঞ্চুগঞ্জে স্কুল ছাত্রীকে অপহরণ করে ধর্ষণের অভিযোগ : ধর্ষক গ্রেফতার



বিশেষ প্রতিনিধি : ফেঞ্চুগঞ্জের কটাল পুর গ্রামের ১৭ বছর বয়সী এক স্কুল ছাত্রীকে অপহরণ করে ধর্ষণের অভিযোগে অভিযুক্ত ধর্ষককে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

গ্রেফতারকৃত ধর্ষকের নাম কাইয়ুম আহমদ। সে উপজেলার আটঘর দিনপুর গ্রামের আব্দুল মন্নানের পুত্র।

বৃহস্পতিবার রাতে পুলিশের অভিযানে ফেঞ্চুগঞ্জ সদরের থানা রোড এলাকা থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়।

মামলার এজহার সুত্রে জানা যায়- ভিক্টিমের মা স্বামী পরিত্যাক্ত একজন নারী। ভিক্টিমের মা, ছোট বোন ও নানীর সাথে কটাল পুর এলাকায় একটি ভাড়া বাসায় থাকে। ভিক্টিম এই বছর এসএসসি পরীক্ষার্থী ছিল।

ভিক্টিমের পাশের গ্রাম দিনপুরে অভিযুক্ত ধর্ষক কাইয়ুমের বাড়ী। কাইয়ুম কৌশলে মোবাইল নম্বার সংগ্রহ করে ভিক্টিম স্কুল ছাত্রীর সাথে জোর করে সম্পর্ক স্থাপনের চেষ্টা করে। কিন্তু ভিক্টিম ছাত্রী রাজী না হওয়ায় তাকে উত্ত্যক্ত করে কাইয়ুম। এক পর্যায়ে মামলার বাদীনি ও ভিক্টিম ছাত্রীর নানি ও আত্বীয় স্বজনের কাছে মেয়েটিকে বিয়ের প্রস্তাব দিতে থাকে। কিন্তু ভিক্টিমের নানি রাজী না হওয়ায় ক্ষিপ্ত হইতে থাকে কাইয়ুম।

ক্ষিপ্ত হইয়া এক পর্যায়ে গত ২৩/০৭/১৯ তারিখে রাত ১০ টার দিকে ভিক্টিমের মোবাইলে বারবার কল দিতে থাকে কাইয়ুম। ভিক্টিম ছাত্রী ফোন রিসিভ না করায় বাড়িতে কেউ না থাকার সুযোগে জোরপূর্বক ভিক্টিম কে সিএনজিতে তুলে কাইয়ুমের নিজ বাড়ীতে নিয়ে যায়। ভিক্টিম ছাত্রীকে বাড়ীতে না পেয়ে ভিক্টিমের নানি খোঁজাখুঁজি শুরু করেন। ঘটনাটি এলাকায় জানাজানি হলে গভীর রাতে ধর্ষক কাইয়ুম ভিক্টিমকে বাসার পাশের রাস্তায় ফেলে যায়। মেয়েটিকে উদ্ধার করে বাসায় নিয়ে আসলে কাইয়ুম তার সাথে যৌন নিপীড়ন করেছে বলে ভিক্টিম জানায়। এরপর তাকে ওসমানী হাসপাতালের ওসিসিতে ভর্তি করা হয়।

পরে ভিক্টিমের নানী বাদী হয়ে ফেঞ্চুগঞ্জ থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে মামলা করেন। মামলা নং ০১/০৮।

শেয়ার করুন:

প্রিন্ট করুন প্রিন্ট করুন

error: Content is protected !!